Breaking News
Home / প্রচ্ছদ / শিবগঞ্জ বিমানবন্দরে চলছে গোচারণ আর ফসল শুকানো উঠান

শিবগঞ্জ বিমানবন্দরে চলছে গোচারণ আর ফসল শুকানো উঠান

গীতি গমন চন্দ্র রায় গীতি, স্টাফ রিপোর্টার:
বাংলাদেশের ঠাকুরগাঁওয়ের শিবগঞ্জ এলাকার মাদারগঞ্জে ১৯৪০ সালে ৫৫০ একর জমিতে বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার সরকারি ও সামরিক কাজে ব্যবহার করতে এটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। পাকিস্তান সরকার বিমানবন্দরের জমি আর্মি স্টেট হিসেবে ঘোষণা দিলে ১১১ একর জমি পায় সিভিল অ্যাভিয়েশন। ওই অংশে পরে ভবন ও রানওয়ে করা হয়।

ব্রিটিশ আমলে স্থাপিত হলেও ঠাকুরগাঁওয়ের বিমানবন্দরটি চালু ছিল স্বাধীনতার পরেও। তবে লোকসানের অজুহাত দেখিয়ে ১৯৭৯ সালের দিকে এখানে বিমান ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়। যাত্রী কম হওয়ার অভিযোগে বন্ধ করা বিমানবন্দরটি এক বছর পরেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। এরপর উদ্যোগ নেয়ার কথা বলা হলেও ৪১ বছরে সেটি চালু হয়নি।দেশের জনসংখ্যা এর মধ্যে সাড়ে ৭ কোটি থেকে বেড়ে হয়েছে প্রায় ১৭ কোটি। দেশের উত্তরাঞ্চলের মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নও হয়েছে। তবে ‘লোকসানের ভয়ে’ এখনও চালু করা হচ্ছে না বিমানবন্দরটি।

স্থানীয়দের দাবি, আগামীর সমৃদ্ধ ঠাকুরগাঁওয়ের অন্যতম সারথি হতে পারে বিমানবন্দরটি। জেলায় শিল্প-কারখানা নির্মাণ থেকে শুরু করে ব্যাবসায়িক কর্মচাঞ্চল্য বাড়াতে বিমানবন্দরটি রাখতে পারে বড় ভূমিকা।

ঠাকুরগাঁওয়ের শিবগঞ্জে ১৯৪০ সালে ৫৫০ একর জমিতে বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার সরকারি ও সামরিক কাজে ব্যবহার করতে এটি প্রতিষ্ঠা করেছিল। পাকিস্তান সরকার বিমানবন্দরের জমি আর্মি স্টেট হিসেবে ঘোষণা দিলে ১১১ একর জমি পায় সিভিল অ্যাভিয়েশন। ওই অংশে পরে ভবন ও রানওয়ে করা হয়।

১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলায় বিমানবন্দরের রানওয়েটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৭ সালে বিমানবন্দরটি বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনার জন্য সংস্কার করা হয়। মাত্র বছর দুয়েক বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালিত হলেও আগ্রহের অভাব এবং যাত্রীসংখ্যা কমে যাওয়ায় কার্যক্রম থেমে যায়। এরপর ১৯৮০ সালে বিমানবন্দরটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বিমানবন্দর এলাকার অনেক জমিতে আবাদ হচ্ছে ফসল। আর রানওয়েটি স্থানীয়রা ব্যবহার করছেন গোচারণ, ফসল মাড়াই ও শুকানোর চাতাল হিসেবে।

দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত বিমানবন্দরটির অবকাঠামো ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে পরিদর্শন করেছিলেন সরকারের সাবেক বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ওই সময় সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, বিমানবন্দরটি চালুর বিষয়ে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার মানুষ সঙ্গে থাকলে বিমানবন্দরটি চালু করা অসম্ভব কিছু নয়।

তখন এক বছরের মধ্যেই ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর চালু করার আশ্বাস দিয়েছিলেন রাশেদ খান। ছয় মাসের মধ্যে কারিগরি ত্রুটিগুলো মেরামতের কথাও জানিয়েছিলেন।

সেই আশ্বাসের পাঁচ বছর পার হলেও বিমানবন্দরটি চালুর বিষয়টি একটুও এগোয়নি।

ঠাকুরগাঁও-পঞ্চগড়ের মানুষ সৈয়দপুর থেকে বিমানে প্রতিদিন যাতায়াত করছে, বিমানবন্দরটি চালু করতে কী পরিমাণ বাজেট লাগবে, কাজ করতে কী পরিমাণ সময় লাগবে, প্রতিদিন সর্বনিম্ন দুটি ফ্লাইট এখানে ওঠানামা করলে কী পরিমাণ যাত্রী লাগবে, তার সঠিক অর্থনৈতিক সমীক্ষা কোনো জনপ্রতিনিধি বা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্তদের উপস্থাপনায় আমরা পাইনি।’

‘বিমানবন্দরটি চালু হলে অনেক পর্যটক ও দর্শনার্থী ঠাকুরগাঁওয়ের এসব দর্শনীয় জায়গায় খুব কম সময়ে যেতে পারবে। বলা যেতে পারে, শুধু পরিত্যক্ত বিমানবন্দর চালু হচ্ছে না বলে ঠাকুরগাঁওয়ের সঙ্গে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও খুব বেশি সংযুক্ত হতে পারছেন না দেশ-বিদেশের পর্যটকরা।’

জেলার একটি বেসরকারি কলেজের প্রভাষক মাহমুদ হাসান প্রিন্স বলেন, ‘দেশি-বিদেশি কোনো বড় বিনিয়োগকারী হাজার হাজার কোটি টাকা শিল্প খাতে বিনিয়োগ করতে চাইলে সবার আগে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে প্রাধান্য দেবে। কিন্তু উত্তরের সীমান্তবর্তী জেলাটিতে শিল্পের বিকাশে প্রধান বাধা যোগাযোগ ব্যবস্থা।

‘এখানে বিমানবন্দরটি চালু হলে শিল্পের বিকাশ ঘটবে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। যার ফল ভোগ করবে এ অঞ্চলের প্রত্যেক পেশার মানুষ।’

অর্থনৈতিক বিশ্লেষক মতিউর মিঠু বলেন, ‘বিমানবন্দরটি ফের চালু করতে সর্বোচ্চ ১০০ কোটি টাকা লাগবে। ২০২১-২২ অর্থবছরে জাতীয় বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। এ বাজেট থেকে মাত্র ১০০ কোটি টাকা একটি জেলার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিদিন গড়ে ১০০ থেকে ১২০ জন যাত্রী দুটি ফ্লাইটে যাতায়াত করলে সরকার এটিকে লাভজনক অবস্থানে নিয়ে যেতে পারবে। ধীরে ধীরে যাত্রী আরও বাড়বে। দুই জেলায় এ পরিমাণ যাত্রী পাওয়া এখন অসম্ভব কিছু নয়।

‘এ ছাড়া বিমানবন্দরটি চালু হলে নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে এ অঞ্চলের মানুষের বাণিজ্যিক সম্পর্কও মজবুত হবে। অঞ্চলটি অর্থনৈতিকভাবে খুব অল্প সময়ে সফলতা লাভ করবে।’

ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাদেক কুরাইশী জানান, বিমানবন্দরটি চালু করার জন্য তিনি সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করেছেন। সংশ্লিষ্টদের উপস্থিতিতে বিভিন্ন সভা ও সমাবেশে এ অঞ্চলের মানুষের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বিমানবন্দরটি চালুর দাবিও তুলেছেন।

জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘ঠাকুরগাঁওয়ের বিমানবন্দরটি ঐতিহ্যবাহী। এটি পুনঃপ্রতিষ্ঠা করার বিষয়ে ঠাকুরগাঁওবাসীর দাবি রয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে উচ্চপর্যায়ে আলোচনা করা হচ্ছে।’

Check Also

নতুন বছরের শুরুতে প্রতিবন্ধি জাহাঙ্গীরের পাশে তৌফিক এন্টারপ্রাইজ

আশিকুর রহমান নয়নমাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রতিনিধিঃ খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলাধীন এক নং তাইন্দং বাজারের তৌফিক এন্টারপ্রাইজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *