Breaking News
Home / অপরাধ / রামপুরা থানার এসআই শরীফের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দপ্তরে অভিযোগ দায়ের

রামপুরা থানার এসআই শরীফের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দপ্তরে অভিযোগ দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার

রামপুরা থানার শীর্ষ উৎকোচ গ্রহন কারী অসাধু এসআই শরীফের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় আই জিপি কমপ্লেইন সেল সহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেন রামপুরা এলাকায় বসবাসকারী কয়েক জন দিন মজুর নিরিহ লোক। তথ্য সূত্রে জানা যায় গত ১৪ মার্চ বিকেলে ইব্রাহিম নামে এক ব্যক্তি হাতিরঝিল দিয়ে তার মায়ের সাথে দেখা করতে যাওয়ার সময় বন্ধু নিবাস আবাসিক এলাকার গলির মুখে দাঁড়িয়ে থাকা রামপুরা থানার জন হয়রানি কারী এসআই শরীফ তাকে জোর পূর্বক গাড়ীতে উঠিয়ে রামপুরা মহানগর প্রজেক্টে নিয়ে যায় এবং তার উপর অমানুষিক নির্যাতন করে এবং তার কাছে ৪০ হাজার টাকা দাবি করে টাকা না দিলে তার কাছে মাদক পাওয়া গিয়েছে বলে তাকে মামলা দেওয়া সহ বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি দেখায়। মামলা আতংক ও এই অমানবিক নির্যাতনের কবল থেকে রক্ষা পেতে সে তাহার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করে,পরে পরিবারের লোকজন অনেক ধারদেনা করে ১৪ হাজার টাকার বিনিময়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।বিনা অপরাধে তাকে শারীরিক নির্যাতন ও জনসাধারণের দেখবালকারী জননিরাপত্তা না দিয়ে জনহয়রানি করায় ।এই অসাধু পুলিশ কর্মকর্তা বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ও তার দূষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেন।যাতে করে সমাজের আর কোন সাধারণ লোকজন যেন এইধরনের অসাধু পুলিশ কর্মকর্তাদের অন‍্যায় অত‍্যাচারের শিকার হয়ে অমানবিক নির্যাতনের কবলে না পরে। বিশেষ সূত্রে আরো জানা যায় এই অসৎ পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে আরো অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে এলাকায় বসবাসকারীদের গত ৬ থেকে ৭ মাস আগে এই এস আইকে উলন বিট অফিসের দায়িত্ব দেওয়ার শুরু থেকেই তিনি চিহ্নিত তালিকা ভূক্ত মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে উৎকোচ চুক্তিতে গভীর সম্পর্ক স্থাপন করেন। প্রকৃত মাদক ব্যবসায়ীদের মদদ দিতে নিরিহ নিরপরাধ মানুষকে মাদক মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে বলে একাধিক অভিযোগ পাওয়া যায় এই যেমন গত ১৭ ই মার্চ উলন রোডের একজন দিনমজুর হাতিরঝিলে পান,বিড়ি , সিগারেট, পানি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে তাকে তার বাসার সামনে থেকে ধরেন এই অসাধু কর্মকর্তা এর আগে আরো তিন জন চিহ্নিত তালিকা ভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী তুমান, সানি ও পিচ্চি জিসানকে মাদক সহ আটক করেন কিন্তু তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহন করে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয় আর তাদের কাছ থেকে পাওয়া মাদক দিয়ে ঐ নিরিহ দিন মজুর লোকটি সহ আরো একজন নিরপরাধ ব‍্যক্তিকে মাদকের মিথ্যা মামলা দিয়ে কোর্টে পাঠানো হয় বলে ভূক্তভোগিরা জানায়।উপনৈবেশিক ব্রিটিশ শাসন ব্যবস্থা থেকে বাংলাদেশ পুলিশকে উত্তরণের লক্ষ্যে সরকার প্রধান সহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জনসাধারণের সাথে পুলিশের সম্পর্ক বৃদ্ধি করতে নানা বিধ কৌশল অবলম্বন করেছেন তার মধ্যে বিট পুলিশিং কার্যক্রম অন‍্যতম কিন্তু এই অসৎ উপায়ে অর্থ উপার্জন কারী অসাধু কর্মকর্তা বিটের দায়িত্ব পালনের নামে মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে উৎকোচ চূক্তি করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করে প্রশাসনের সাথে জনদূরত্ব স্থাপন করছে। প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জনসাধারণের মধ্যে যে মন্তটির সুফল ঘটাতে চাচ্ছেন জনতাই পুলিশ, পুলিশ ই জনতা তার শতভাগ সুফল নিশ্চিত পাওয়া যাবে না যতদিন না এই ধরনের অসৎ সদস্যদের সমাজ ধ্বংসকারী ব‍্যক্তিদের কাছ থেকে অর্থ বিনিময়ে অনৈতিক কর্মকাণ্ডকে প্রশ্রয় দিয়ে নিরিহ লোক জনদের হয়রানি করা থেকে বিরত রাখতে যথাযথ ব্যবস্থা না নিবে অভিমত সুশীল সমাজের ব‍্যক্তিদের ।

Check Also

ধামরাইয়ে ৩শত পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান

মোঃ বুলবুল খান পলাশ, ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধিঃ-ঢাকার ধামরাইয়ে নিজ ব্যক্তিগত তহবিল থেকে করোনাকালীন সময়ে পৌর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *