Breaking News
Home / প্রচ্ছদ / জমজমাট ঈদের বাজার, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অনেকেই!

জমজমাট ঈদের বাজার, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অনেকেই!

পরিমল চন্দ্র বসুনিয়া, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলাধীন বাজার গুলোতে শারীরিক দূরত্বে বালাই নেই, ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন ত্রুেতারা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে মানুষের করোনা সংক্রমণের হার বেড়েছে। পাশাপাশি বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। এরই মধ্যে ঈদুল ফিতর দুয়ারে কড়া নাড়চ্ছেন।

এখন আর মানুষকে করোনা নিয়ে তেমন একটা ভাবতে দেখা যাচ্ছে না। এর প্রমাণ মেলে হাতীবান্ধা উপজেলার বিভিন্ন মার্কেট ও কাপড়ের দোকান গুলোতে। বিভিন্ন বয়সী মানুষ তাদের পছন্দের কাপড়সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্য কিনছেন। প্রতিটি বস্ত্রালয়ের গলিতে এখন ত্রুেতাদের উপচেপড়া ভিড়। এক্ষেত্রে তাদের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো তাড়না নেই। প্রায় সব মার্কেটেই পা ফেলার জায়গায় নেই অবস্থা বিরাজ করছে।

উপজেলার বন্দর বাজার, বড়খাতা বাজার এবং দইখাওয়া বাজারসহ বিভিন্ন মার্কেটে ত্রুেতাদের গা ঘেঁষে চলতে দেখা গেছে। অভিভাবকদের সঙ্গে ঈদের কাপড় কিনতে আসা শিশুদেরও মাস্ক পরতে দেখা যায়নি।

দইখাওয়া বাজারের কাপড় বিত্রুেতা মো.নবীর হোসেন বলেন, ঈদে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নের ভয়ে ক্রেতাদের ভিড় একটু বেশি। বেচা বিক্রিও ভালোই চলছে।

আরও কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা বলেন, ঈদ কেনাকাটার জন্য হাতে সময় আছে আর মাত্র কদিন। তাই সময় নষ্ট করতে চাইছেন না ক্রেতারা। তাই এ কারনেই বাজার এবং শহরের বড় বড় কাপড়ের দোকান গুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় এখন থেকে বাড়তে থাকবে।

বড়খাতা বাজারে কাপড় কিনতে রাসেদ মিয়া জানান, এখন মনে হয় করোনা কমে গেছে, অনেকেই বের হচ্ছেন। তাই পরিবার লোকজনদের জন্য কাপড় কিনতে বের হয়েছি। হাটবাজার গুলো দেখে মনে হয় করোনা আর নেই।

দইখাওয়া বাজারে ঈদের কাপড় কিনতে আসা তাহাজুল ইসলাম বলেন, ঈদে আত্মীয়দের বাড়িতে যাবো, তাদের জন্য কিছু কাপড় কেনাকাটা করতে এসেছি। এর পাশাপাশি পরিবারের মানুষের জন্যও কেনাকাটা করতে হবে।

এদিকে, মহামারী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারের কঠোর লকডাউন ও বিধিনিষেধ থাকা সত্ত্বেও হাতীবান্ধার জনসাধারণের মধ্যে যেন কোনো ধরনের করোনা ভীতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।

জানা যায়, সরকারের সিধান্ত অনুযায়ী প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দোকানপাট ও শপিংমল খোলা থাকছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাইকে বেচাকেনা করতে হবে বলে জানানো হয় নির্দেশনায়।

Check Also

ধামরাইয়ে ৩শত পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন উপজেলা চেয়ারম্যান

মোঃ বুলবুল খান পলাশ, ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধিঃ-ঢাকার ধামরাইয়ে নিজ ব্যক্তিগত তহবিল থেকে করোনাকালীন সময়ে পৌর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *