Breaking News
Home / অপরাধ / কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পানিতে ডুবে মৃত শিশুকে তার চাচাত ভাই ও ভাবী কর্তৃক হত্যার অভিযোগ

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পানিতে ডুবে মৃত শিশুকে তার চাচাত ভাই ও ভাবী কর্তৃক হত্যার অভিযোগ

কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃ
গত রোববার ১৭/০৭/২০ তারিখ বেলা অনুমান ০১.০০ টার সময় পাশের বাড়ির পেয়ারা গাছ থেকে একটি পেয়ারা হাতে নিয়ে খেতে খেতে ঐ বাড়ির গেট দিয়ে রাস্তার দিকে চলে যাওয়ার সময় নিখোঁজ হয় রহমত উল্লাহ (৩)। কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার ফিলিপনগর ইউনিয়নের চর সাদীপুর আশ্রাফ মোড় গ্রামে নিখোঁজ শিশুকে খোঁজাখুঁজি করার ১ ঘন্টার মধ্যে ঐ দিন বেলা অনুমান ০২.০০ ঘটিকার সময় এলাকাবাসী ফসলী জমির মাঝে অবস্থিত একটি মেটেল বা মাইটিল এর ভেতর থেকে ভাসমান অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে। শিশুটিকে অচেতন অবস্থায় দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রহমতকে মৃত বলে ঘোষণা দেন। ঘটনার আকস্মিকতায় সদ্য মৃত শিশুটির পিডা-মাতা হত বিহ্বল হয়ে পড়েন। প্রাথমিক অবস্থায় সবাই এটাকে পানিতে ডুবে মারা গেছে বলছিল। হাতে কোন প্রমান বা কারো উপরে সন্দেহ না আসায় তাদের পুত্রের লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে কাটা ছেড়ার জন্য পাঠানো অপ্রয়োজনীয় বলে মনে হওয়ায় ও পারিবেশিক প্রভাবে অথবা মানসিক ভাবে শোককাতর হওয়ায় থানা পুলিশ লাশ ময়না তদন্তের জন্য প্রেরণের বন্দোবস্ত ও পদক্ষেপ গ্রহন করলেও ওজর আপত্তি হেতু মৃতের অভিভাবকের মুচলেকা শর্তে লাশ দাফনের অনুমতি দেন। রাত নয়টার সময় পারিবারিক গোরস্তানে শিশুটিকে দাফন করা হয়। এই কাহিনীটির এখানেই যবনিকাপাত ঘটে যাওয়ার কথা কিন্তু তা না ঘটে এবার থলের ভেতর থেকে বের হয়ে ম্যাও ম্যাও শব্দে কালো বিড়ালের মত চমক। জুবায়ের নামের চার বছরের এক শিশু যে কিনা মৃত রহমত এর সমবয়সী ও খেলার সাথী। একথায় সে কথায় পাড়ার অন্য সাথীদের কাছে বলে দেয় অাসল ঘটনা। মুহুর্তে গ্রামবাসীর মধ্যে চাউর হয়ে যায় যে, দেলোয়ার ও তার স্ত্রী জলি রহমতকে তাদের বাড়ির ভিতরে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মেরেছে। খবরটি ছড়িয়ে যাওয়ার পর দুটো কাজ সমান্তরাল ভাবে ঘটে। একটা কাজ যেটা দেলোয়ার ও তার বৌ করলো, কাজটি হলো তাদের ছেলে যুবায়েরকে ঘোড়ামারায় তার নানীর বাড়িতে পাঠিয়ে দিল। অন্য কাজটি শুরু করলো প্রতিবেশি ও গ্রামবাসী। সেটা হলো তারা খুনের স্বপক্ষে সাক্ষ্য পেয়ে নেমে পড়েন সমীকরণ মেলাতে। তাদের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে, ১। পানিতে ডুবলে পানি গিলবে, পেট পানিতে ভরে যাবে। উদ্ধারের পর পানি বের করার চেষ্টা করাকালে পানি বের হয়নি। ২। যে স্থানে শিশুটিকে পাওয়া গিয়েছিল সেই পর্যন্ত ঐ বয়সের একজন শিশুর পক্ষে নিমজ্জিত ফসলের মাঠ অতিক্রম করে পৌছানো অসম্ভব। ৩। শিশুটিকে উদ্ধারের দিন ঘটনাস্থলে দুই তিন গ্রামের বিপুল সংখ্যক লোকজন ঘটনা দেখার জন্য সমবেত হয়েছিল। কিন্তু শিশুর পায়ে থাকা স্যন্ডেল জোড়া পরদিন ঐ স্থান থেকেই পাওয়া যায়।
পারিবারিক বিরোধ বা অন্য কোন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে পরিকল্পিতভাবে শিশুটিকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে ঠান্ডা মাথায় বৃষ্টির মধ্যে সকলের অগোচরে পাট ও ধানের জমি পেরিয়ে জলাবদ্ধতা মেঠেল গর্তে ফেলে আসে। মৃত বিধায় শিশুটি ভাসতে থাকে আর তাই খুবই কম সময়ের খোঁজা খুঁজিতেই হদিস মেলে।সম্পর্কে দেলোয়ার মৃত রহমতের চাচাত ভাই। রহমতের মা মীরা খাতুন প্রতিবেদককে জানান, দুই কন্যা সন্তানের জন্ম হওয়ার পর তার এই ছেলেটি পৃথিবীতে আসে। ছেলেটি তাদের পরিবারে রহমত হয়ে এসেছিল মনে করে ছেলের নাম রাখা হয় রহমত উল্লাহ। বংশের প্রদীপ হয়ে জ্বলে উঠতে যাতে না পারে সেই দুরভিসন্ধির অংশ হিসেবে জলি খাতুন তার স্বামী দেলোয়ারের সহযোগিতায় ও জ্ঞাতসারে তার বুকের ধনকে কেড়ে নিয়েছে। সদ্য পুত্রহারা মমতাময়ী মা আরও বলেন, আমাদের সব আশা আকাঙ্খা স্বপ্নকে গুঁড়িয়ে দিয়ে আমাদের আবেগ ও ভুলে পার পেয়ে যাওয়ায় প্রকাশ্যে খুনের কথা বলে বেড়াচ্ছে। সরেজিনে ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃত শিশুর পিতা-মাতা, আশেপাশের লোকজনের সাথে কথা বলে তাদের প্রদত্ত বক্তব্যানুসারে প্রতিবেদনটি লিখিত হলো। অনুসন্ধান কালে, অভিযোগে তীরের লক্ষ্য বিন্দু দেলেয়ার ও জলির মুখোমুখি হতে প্রতিবেদক প্রথমে তার বাড়িতে গিয়ে বাড়ি তালাবদ্ধ দেখতে পান। অনেক খোঁজা খুঁজির পর তাদের সন্ধান মিললে তারা বলেন, তাদের উপর সন্দেহ করা হচ্ছে। এরুপ কাজ তারা করেননি। রহমত মারা যাওয়ার এক দিন বাদে স্বীয় পুত্র যুবায়েরকে কেন নানা বাড়ি পাঠালেন? এই প্রশ্নের উত্তর দিতে ভ্যবাচ্যাকা খান। মৃতের অভিভাবকেরা ময়না তদন্তে সম্মত না ঘাকলেও এখন তাদের মত ইতিবাচক। প্রস্তুতি চলছে বিজ্ঞ আদালতের দ্বারস্থ হবার। প্রতিবেদকের অভিমতঃ অপরাধমূলক সকল ঘটনার রহস্য উন্মোচিত হোক। সত্য প্রতিষ্ঠিত হোক। কোন অপরাধী দুষ্কর্ম করে আইনের ধরা ছোঁয়ার বাইরে না থাকুক। রহস্যময় হত্যা হিসেবে এর আইনী কার্যক্রম পুনরুজ্জীবিত করা হোক।

Check Also

পোরশা সীমান্তে ভারতের অভ্যন্তরে এক বাংলাদেশী আটক

নাহিদ পোরশা (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর পোরশা নিতপুর সীমান্তে ভারতের অভ্যন্তরে মনিরুল ইসলাম (২৫) নামে এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *