Breaking News
Home / প্রচ্ছদ / ময়মনসিংহে করোনা যুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেট (লাবণ্য)

ময়মনসিংহে করোনা যুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেট (লাবণ্য)

ময়মনসিংহ ত্রিশাল থেকে এস এম রুবেল আকন্দ:

দেশে চলমান প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশে গোটা দেশ লকডাউন। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। ঠিক তখন নিজের জীবনের নিরাপত্তার কথা না ভেবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, কোয়ারিন্টাইন নিশ্চিত, অসহায় মানুষের কাছে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছানো, দ্রব্যমূল্যের বাজার নিয়ন্ত্রণ এবং মানুষকে ঘরে ফেরাতে কাজ করছেন বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেগুফতা মেহনাজ লাবণ্য। প্রতিনিয়ত করোনার সাথে যুদ্ধ করে চলেছেন। ময়মনসিংহের সদর উপজেলার মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ ও নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য নিরলস কাজ করছেন ম্যাজিস্ট্রেট সেগুফতা মেহনাজ। সকাল হলেই প্রতিদিন বেড়িয়ে পড়েন সদর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সেনবাহিনী ও পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে দিনরাত মাঠে থাকছেন ম্যাজিস্ট্রেট সেগুফতা। জানা গেছে, করোনা মোকাবেলায় সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা করেছেন বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রটে।
ভাবখালী ইউপি’র চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুস সাত্তার সোহেল ও ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার শেখ নয়ন মিয়া বলেন, ‘বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেগুফতা মেহনাজ লাবণ্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাতদিন করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে এবং মানুষকে ঘরে ফেরাতে যেভাবে আন্তরিক হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন, তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তাঁর মতো কর্মকর্তারাই পারে নিষ্ঠার সাথে মেধা ও শ্রম দিয়ে সোনার বাংলাদেশ গড়তে। ’বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেগুফতা মেহনাজ লাবণ্য বলেন, ‘আমি সরকারের একজন প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। উপজেলাবাসীকে নিরাপদে রাখতে যা যা করার প্রয়োজন তা আমরা করছি। করোনা মোকাবেলায় জনসচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আশা করি করোনা যুদ্ধে আমরা জয়ী হবো। তবে সকলের প্রতি আমার অনুরোধ প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে কেউ বের হবেন না।

Check Also

ঠাকুরগাঁও জেলার শ্রেষ্ঠ গরু বারাকাত ওজন ১১শ কেজি মূল্য ১৩ লাখ ক্রেতা খুজচ্ছেন খামারি জিল্লুর

গীতি গমন চন্দ্র রায় গীতি,স্টাফ রিপোর্টার ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে ৫ নং সৈয়দপুর ইউনিয়নের থুমনিয়া (সাহাপাড়া)গ্রামের রিয়াজুল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *