Breaking News
Home / সারা বাংলা / ডুবে যাওয়া বাস থেকে যাত্রীদের উদ্ধার করে প্রশংসিত ওসি

ডুবে যাওয়া বাস থেকে যাত্রীদের উদ্ধার করে প্রশংসিত ওসি

অনলাইন ডেস্ক

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়া বাসের যাত্রীদের উদ্ধার করে প্রশংসায় ভাসছেন শরীয়তপুরের ডামুড্যা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মেহেদী হাসান।

দুর্ঘটনার পর জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অন্তত ১০ থেকে ১৫ জনকে পানির নিচ থেকে উদ্ধার করেছেন তিনি। যাত্রীদের উদ্ধারের কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। অনেকে তার ভূয়সী প্রশংসা করছেন। তাকে নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।

মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে ডামুড্যা-শরীয়তপুর সড়কের ডামুড্যা উপজেলার খেজুরতলা এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। বাসটিতে অন্তত ৩০ জন যাত্রী ছিলেন। উপস্থিত লোকজন যখন দাঁড়িয়ে দুর্ঘটনাটি প্রত্যক্ষ করছিলেন, তখন ডামুড্যা থানা পুলিশের ওসি মেহেদী হাসান জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ময়লা খাদের পানিতে লাফিয়ে পড়েন। তার লাফিয়ে পড়া দেখে স্থানীয় লোকজনও লাফিয়ে পড়েন। গাড়ির জানালার গ্লাসগুলো ভেঙে দেন তারা। যাতে সহজে গাড়ির ভেতরে থাকা যাত্রীরা বেরিয়ে আসতে পারেন। গাড়ির ভেতর আটকা পড়া ছয় নারীসহ ১০ থেকে ১৫ জন যাত্রীকে উদ্ধার করেন ওসি নিজেই।

সংবাদ পেয়ে ছুটে আসেন ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এ সময় কামরুজ্জামান মাহমুদ মুন্সী (৪৫) ও ইয়াকুব পাইককে (৮০) উদ্ধার করা গেলেও বাঁচানো যায়নি। এ দুর্ঘটনায় আহত হন ছয় নারীসহ অন্তত ২৫ যাত্রী।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন ডামুড্যা উপজেলা শাখার সহসভাপতি মোহাম্মদ নান্নু মৃধা বলেন, গাড়িটি খাদে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের ওসি মেহেদী হাসান দ্রুত লাফিয়ে পড়েন। তিনি প্রথমে গাড়ির জানালার গ্লাসগুলো ভেঙে দেন। পানির নিচে গাড়ির ভেতর থেকে বের করে আনেন অনেক যাত্রীকে। তার সাহসী পদক্ষেপের কারণে রক্ষা পায় বহু প্রাণ।

মনির হোসেন সাজিদ নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘স্যালুট, ডামুড্যা থানার ওসি মেহেদী হাসানকে’।

স্থানীয়রা জানান, দুর্ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে ওসি মেহেদী হাসান যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে যাত্রীদের উদ্ধার করেন তা অবিশ্বাস্য। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ময়লা পানিতে নামেন। এ বীরত্বের জন্য উপস্থিত হাজারো মানুষ তাকে এবং পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান।

মেহেদী হাসান বলেন, ‘যারা দুর্ঘটনাকবলিত হয়েছে তারা তো মানুষ। মানুষ তো মানুষের জন্য। সেই চিন্তা করেই ঝাঁপিয়ে পড়ি যাত্রীদের বাঁচাতে। এটা আমার কর্তব্য ছিল’।

এ ব্যাপারে শরীয়তপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গোসাইরহাট সার্কেল) মো. মোহাইমিনুল ইসলাম বলেন, যাত্রীদের জীবন বাঁচাতে আমাদের মেহেদী হাসান জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যা করেছেন তা পুলিশ বিভাগের জন্য সত্যিই প্রশংসনীয়। সূত্রঃ দেশ রূপান্তর

Check Also

দিনাজপুরে “পড়া লেখা কোচিং সেন্টারকে” সরকারী নির্দেশনা অমান্য ১ লক্ষ টাকা জরিমানা

মোঃ মঈন উদ্দীন চিশতী, দিনাজপুরঃ সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে দিনাজপুর শহরের বড়বন্দর এলাকার স্বাস্থ্য বিধি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *