Breaking News
Home / মফস্বল / দিনাজপুরে বিষ খাইয়ে নববধূকে হত্যার অভিযোগ

দিনাজপুরে বিষ খাইয়ে নববধূকে হত্যার অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় নববধূ আঁখি মনিকে (১৮) নির্যাতনের পর বিষ খাইয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

দিনাজপুর রাত ১১টার দিকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আঁখি মনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

এ ঘটনায় নিহত আঁখির পিতা বাদী হয়ে কাহারোল থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে।

জানা গেছে, বিরল উপজেলার মঙ্গলপুর ইউপির মাহাতাবপুর গ্রামের আব্বাস আলীর কন্যা আখি মনির (১৯) সঙ্গে পার্শ্ববর্তী কাহারোল উপজেলার ৪নং তারগাঁও ইউপির বাইচপুর লোহাগাঁও গ্রামের এনামুল হকের পুত্র রমজান আলীর সঙ্গে বিয়ে হয়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় নববধূ আঁখিকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পার্শ্ববর্তী বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে বিষ খেয়েছে বলে ওয়াশ করার পর তাকে বাড়িতে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাত ৯টার দিকে আবার তাকে একই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখানে রাত ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আঁখি মনি মারা যান।

ঘটনায় নিহত আখি মনির পিতা আব্বাস আলী বাদী হয়ে কাহারোল থানায় আঁখি মনির শ্বশুর এনামুল হক, শাশুড়ি আনজু আরা ও স্বামী রজমান আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগে আব্বাস আলী উল্লেখ করেন, বেশ কিছুদিন থেকে রমজান আলী ৮০ হাজার টাকার জন্য আঁখি মনিকে নির্যাতন করে আসছিল। বৃহস্পতিবার বিকালে যৌতুকের জন্য আঁখি মনির শাশুড়ি আনজু আরা, শ্বশুর এনামুল হক ও স্বামী রমজান আলী নির্যাতন চালায়।

নির্যাতনের এক পর্যায়ে আঁখি মনি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে মৃত ভেবে তার মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়। এ সময় আশপাশে প্রচার করে আঁখি মনি পেটের ব্যাথা সহ্য করতে না পেরে বিষ খেয়েছে।

পরবর্তীতে রমজান আলী সন্ধ্যায় জানায়, আঁখি মনি বিষ খেয়েছে এবং বোচাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সেখান গিয়ে চিকিৎসককের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারি যে, আঁখি মনির পেট থেকে বিষ বের করা হয়েছে। পরবর্তীতে চিকিৎসকের পরামর্শে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাত ১১টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আঁখি মনি মারা যায়। আব্বাস আলী বলেন, রমজান এর আগেও ২টি বিয়ে করেছিল। সেগুলো ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। আমার মেয়েকে ১ বছর পূর্বে রমজান ঢাকায় বড় চাকরি করে বলে প্রলোভন দেখিয়ে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে বিয়ে করে। রমজান ইতিপূর্বেও জন্য আঁখি মনিকে অনেকবার নির্যাতন করেছে।

এদিকে খবর শুনে স্থানীয় সাংবাদিকরা আঁখি মনির শশুরবাড়িতে গিয়ে কাউকে পায়নি। তারা সবাই পালিয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, রমজান আলী আনসার ভিডিপিতে চাকরি করেন। তিনি বর্তমানে ঢাকায় বিমানবন্দরে কর্মরত আছেন।

এ ব্যাপারে কাহারোল থানার ওসি আইয়ুব আলী জানান, আঁখি মনিকে বিষ খাইয়ে হত্যা করা হয়েছে এরকম একটি খবর আমরা শুনেছি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

Check Also

নওগাঁর পোরশায় লকডাউনের পঞ্চম দিনে কঠোর অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন

নাহিদ পোরশা, (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর পোরশায় লকডাউনের পঞ্চম দিনে জন সচেতনা বাড়াতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *