Breaking News
Home / প্রচ্ছদ / যাত্রাবাড়ীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের নাম ভাঙ্গিয়ে মাদ্রাসার অন্তরালে প্রতারণার ব্যবসা

যাত্রাবাড়ীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের নাম ভাঙ্গিয়ে মাদ্রাসার অন্তরালে প্রতারণার ব্যবসা

এস এ শহিদ (ক্রাইম)

ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকা দিন যাত্রাবাড়ী থানার পাড়াডগার কোনাপাড়ার আলী মোহাম্মদ খান রোডের খান মঞ্জিল এর ভাড়াটিয়া মাওলানা আবুল কালাম আজাদ পিতা: আব্দুল খালেক হাওলাদার,তার গ্রামের বাড়ি উত্তর সউদখালী,শরণখোলা, বাগেরহাট। আনুমানিক ৪ বছর পূর্বে অত্র এলাকায় ভাড়া বাড়িতে হাতে গোনা কয়েকজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্র নিয়ে শুরু করেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বা অন্ধ ছাত্রদের মাদ্রাসা ও এতিমখানা। অত্র এলাকার ও আশপাশের এলাকার ধর্মপ্রাণ মানুষ তার এ মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানায় ও সার্বিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। সমাজের মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক সহযোগিতা তার অবৈধ অর্থ উপার্জন ও বাড়ি গাড়ি ক্রয় এবং বহু বিবাহ করার লোভ ও লালসায় তাকে পেয়ে বসে। অন্ধ ও এতিমদের নামে ও মাদ্রাসার নামে উত্তলিত টাকায় নিজ নামে কিনে নেন জায়গা ও বাড়ি। ঘরের বউ তার এ ধরনের অনৈতিক অর্থ উপার্জন বন্ধ করতে বলায় শুরু হয় তার উপর শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে তার অত্যাচার ও নির্যাতন সহ্য না করতে পেরে তার নিজ বাড়িতে চলে যায়। তিনি তার স্ত্রীকে তালাক দেন। ঐ সংসারে ৬ বছরের এক কণ্যা সন্তান রয়েছে। বিগত ২ বছর যাবৎ খোঁজ খবর ও ভরন পোষণ দেন না তিনি। তার পরিচালিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী মাদ্রাসায় যে সকল আবাসিক ছাত্র আছে তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মাদ্রাসার প্রতিদিনের খাবারের মান অনেক নিম্ন মানের যা খেতে না পেরে অনেক ছাত্র বাহিরে নিজেদের টাকায় খাবার কিনে খেতে হয়। মাদ্রাসায় উত্তলিত গরু, খাসি কিংবা চাল,ডাল তার মায়ের মাধ্যমে বাহিরে বিক্রি করে দেয়। এলাকাবাসী তা জানতে পেরে তার মাদ্রাসায় দান ও সাহায্য বন্ধ করে দেয়। তিনি তার মাদ্রাসায় ছাত্রও নেন ধনী -গরীব বাছাই করে। রমজানের যাকাত-ফিতরা, কোরবানির চামড়ার টাকাও অন্ধ দৃষ্টি প্রতিবন্ধদের নামে উত্তলিত সকল টাকা পয়সা আবুল কালাম আজাদ ব্যবহার করে তার ভোগ বিলাসিতা ও নিজের সংসার চালাতে একক মালিকানায় মাদ্রাসা স্থাপন করায় আয় ব্যয়ের হিসাব নিকাশ এর জবাবদিহিতা না থাকায় তিনি বার বার অপকর্ম করেও সমাজে ভালো মানুষের মুখোশধারী প্রতারক। আদর্শ বাগ পাড়া ডগার এর সমাজের সকল ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষ তার এ ধরনের অপকর্মের উপযুক্ত বিচার চায়। অনতিবিলম্বে তার এ ধরনের অপকর্মের অনুসন্ধান করে যথা উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে আশা রাখি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় প্রসাশন তার এ ধরনের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বা অন্ধদের নিয়ে মাদ্রাসা ও এতিমখানার আড়ালে ধর্ম ব্যবসা ও বহু বিবাহের নামে নারী নির্যাতন বন্ধ করবে নিশ্চই।

Check Also

ঠাকুরগাঁওয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয় উদ্বোধন

দুর্নীতি দমন কমিশনের ঠাকুরগাঁওয়ের সমন্বিত জেলা কার্যালয় উদ্বোধন উপলক্ষে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। রোববার জেলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *